best ma choti মা! শুধু একবার করবো – 20

Bangla Choti Golpo

bangla best ma choti. (আকাশ আনিতাকে শান্ত করানোর চেষ্টা করে কিন্তু আনিতা সেখান থেকে চলে যায়। আগের দিনের মতই, আকাশ মন খারাপ করে নিজে নিজে বলে, “আমি নিজেকে কন্ট্রোল করতে পারছি না। আমাকে সাবধানে এগিয়ে যাওয়া উচিৎ। মা এভাবে বারবার রেগে গেলে আমারই ক্ষতি। “আকাশ তার মায়ের বড় স্তনের কারণে আকাশ নিজেকে কন্ট্রোল করতে পারছিলো না। এজন্য নিজের সীমানা অতিক্রম করায় আনিতাকে অনেক রাগিয়ে দেয় সে।

আরও একটা ঘটনা ঘটে, আকাশের লিঙ্গ খাড়া হয়ে গেছিলো তার মাকে চুমু খাওয়ার সময়। যেটা তখন আনিতা ফিল করতে পেরেছিলো। আনিতা তার ঘরে দরজা বন্ধ করে হাফাতে থাকে। “উফফফ, আকাশের ওটা কত বড়! বেয়াদবটা মাকে নিয়ে এসবও ভাবে। আর নিজের দেহের বেহাল অবস্থা করে।”সে আকাশের উপর প্রচুর রাগ করে। আকাশকে বারবার বারণ করা সত্ত্বেও সে আনিতার শরীরকে স্পর্শ করে, যেটা আনিতা মোটেই পছন্দ করেনা।

best ma choti

” আমার কী করা উচিৎ! আকাশের পুরুষত্ব দেখে আমি নিজেকে ঠিক রাখতে পারিনা। ভগবানের দোহায় আজকে রক্ষা পেয়েছি। নাহলে আজকে খুব বড় কিছু ঘটে যেতো। যেটা আমি কখনোই চাইনা। আকাশের এসব বেয়াদবি যে কিভাবে বন্ধ করি! ও তো এসব শুনতেই চায়না। আমাকে কঠোর হতেই হবে।” আনিতা রাগে রাগে একাএকা এসব বলছিলো, তখনই আকাশ তার ঘরে ঢুকলো)
মা- কি হয়েছে, কেন এসেছিস? (রাগে)

আমি- আমি কারো সাথে তোমার কথা বলাতে চাই মা।
মা- কার সাথে।
আমি- আগে তুমি রাগ দেখানো বন্ধ করো তো মা।  আর শোনো কথা বলতে হবে আমার গার্লফ্রেন্ড হিসেবে। নাম জিজ্ঞাসা করলে বলতে তোমার নাম “নিতা”। best ma choti

মা সম্মতি দেওয়ার আগেই আমি কল দিই। যখন রিং হচ্ছিলো তখন মা বলে,
মা- না না আমি এমন করতে পারবোনা। (রাগ গায়েব)
আমি- মা কাম অন, পারবে তুমি।
মা- কেউ জেনে যায় যদি? (ধীর গলায়)

আমি- কেউ জানবে না। তুমি একটা রুমাল ব্যবহার করো। ফোনের মাউথ স্পিকারে সেটা দিয়ে রাখো আর নিজের গলাও কিছুটা নরম করে বলবে। তাহলে কেও বুঝবেনা তুমি কে।
ওদিকে কল রিসিভ হয়ে যায়।

মা- না না আমি পারবোনা। এসব কেন বলবো আমি!
আমি- শিসসসস, হ্যালো।
ওদিকে- হ্যা ফোন দে ওকে।
আমি- এই নাও কথা বলো। best ma choti

আনিতা একটু ভয়ে আর লজ্জায় মোবাইলটা ধরে তার মুখের সামনে রুমাল রেখে কথা বলে।

মা- হ্যালো।
ওপাশে- হ্যালো, আমি আকাশের মাসি সুনিধি বলছি।

(এবার আনিতা চমকে ওঠে আর আকাশের দিকে তাকায়। আকাশের দিকে তাকিয়ে আস্তে করে বলে,)

মা- এটা তো সুনিধি। সুনিধির সাথে আমি কিভাবে…..
আমি- শিসসসস, চুপ করো না, ও শুনে ফেলবে। তুমি কথা বলতে থাকো ওর সাথে। বুঝতে পারবেনা।(ধীর গলায়)

ফোনে,

মা- হ্যাঁ, আমি আকাশের গার্লফ্রেন্ড বলছি।
সুনিধি-  জানি তো, আকাশ খালি তোমার প্রসংশায় করে সারাদিন।
মা- হুম। best ma choti

সুনিধি- অবশেষে তুমি আকাশের ভালোবাসা মেনে নিলে। এটা আমি জেনে অনেক খুশি হলাম। আকাশ তোমাকে অনেক ভালোবাসতো, একেবারে পাগলের মত ভালোবাসা যাকে বলে।
মা- হ্যা, এটা আমি জানি।

সুনিধি- তুমি বিশ্বাস করো,  এমন ভালোবাসার কাওকে ছেড়ে থাকা যায় না। মাঝে মাঝে তো মনে হতো আমিই আকাশকে পটিয়ে ফেলি।  ওর মত ছেলেকে কেও কিভাবে ফিরিয়ে দিতে পারে!
মা- আমিও এখন সেটা বুঝতে পারছি।
সুনিধি- ও তোমাকে অনেক ভালোবাসে, তুমিও তাকে একটু হলেও ভালোবাসা দিও।
মা- হ্যাঁ, আমি অবশ্যই সেটা করবো।

(আনিতা ঘাবড়ে গিয়ে কিছু বলতে পারছে না আর তাই আকাশ তার কাছ থেকে ফোন নিয়ে নেয় আর সুনিধির সাথে কথা বলে৷ একটু কথা বলে ফোন কেটে দেয়। আকাশ ফোন রাখতেই আনিতা আকাশের গালে একটা ন্যাকা চড় মারে। যেটাই আঘাত তো মোটেই লাগেনা তবে মায়ের নরম হাতের মিষ্টি ছোয়া ঠিকই পাওয়া যায়।) best ma choti

মা- এটা কি হলো? শেষমেশ সুনিধির সাথে আমাকে গার্লফ্রেন্ড বানিয়ে কথা বলিয়ে নিলি?
আমি- এটা শুধু এক ধরনের মজা মা। যায়হোক তোমার কেমন লেগেছে?
মা- বাব্বাহ, আমি তো তোমাকে ভয় পেয়ে গেছিলাম।
আমি-  ভয়ের কিছু নেই মা। মাসি কিছুই জানতে পারবেনা। তুমি চিন্তা করা বাদ দাও তো।

(আকাশ আনিতাকে তার বুকের সাথে জড়িয়ে ধরে, এতে আনিতা অনেক লজ্জা পায় আর আগের সব রাগ যেন উধাও হয়ে যায়।

দিন পার হয়ে রাত, রাত পার হয়ে দিন এগিয়ে যাচ্ছিলো।  কিন্তু আনিতার দিক থেকে এখনো এই সম্পর্কটা আগে যায়নি।  আনিতা এখনও সম্পর্কটাকে এগিয়ে নিতে অনেক বিভ্রান্তবোধ করেছিলো। আকাশ কোনো না কোনো বাহানার তার শৈশবের খাবার জায়গা একটু স্পর্শ করতে চেষ্টা করেছিলো কিন্তু আনিতা তাকে বরাবরের মত বারণ করতো বারবার। এভাবেই আকাশের প্রচেষ্টা বারবার ব্যার্থ হয়। best ma choti

ওদিকে আনিতাও আকাশের এমন কাজে নিজেকে সামলাচ্ছে খুব কষ্ট, সে আর সেদিনের মত স্বমৈথুন করেনা, নিজেকে খুব শক্ত করে রেখেছে এই বিষয়ে। সেদিন কি একটা ঘটনায় না সে করে ফেলেছিলো! নিজের গর্ভের ছেলের নাম নিতে নিতে স্বহস্তে নিজের রতিরস বিসর্জন দিয়েছিলো। পরে অবশ্য নিজের উপর ও আকাশের উপর প্রচন্ড রেগে যায়।

এভাবেই কয়েকমাস পার হয়ে যায়। আকাশ আর আনিতার মধ্যে ভালোবাসা বেড়েছে অনেক। কিন্তু তাদের  সেই অজানা পথটা এগোচ্ছিলো না।  আকাশ দিল্লিতে যাচ্ছিলো পড়ার জন্য আর ১৫ দিনের মধ্যে আবার কোলকাতা চলে আসছিলো আনিতার সাথে সময় কাটানোর জন্য, আনিতাকে সামনে এগোতে বলার জন্য।  কিন্তু আনিতার দিক থেকে এসব একটুও এগোচ্ছিলো না।  আকাশ এবার কঠোর পরিকল্পনা করে, মাকে সে এই জল্পনা-কল্পনা থেকে বের করে তাদের সম্পর্ককে আগে নিয়ে যাবে।) best ma choti

চার মাস পর—

সময় কেটে যাচ্ছিল কিন্তু আকাশ সামনের আগানোর কোনো পথ খুঁজে পেলো না। আনিতার সময় দরকার ছিল যেটা আকাশ তাকে দিচ্ছিলো। এই ৪ মাসে আনিতার থেকে এখনো সম্মতিসূচক ঈঙ্গিত আসেনি। ওদিকে আকাশও গাড়ির ড্রাইভিং শেখার  জন্য  প্রশিক্ষণ নিতে শুরু করে।

আনিতার মন তো সম্পুর্নভাবে আকাশকে দিয়ে দিয়েছিলো, ও আকাশকে ভালোবাসে কিন্তু সামনে এগোতে ভয় পাচ্ছিলো। তার মনে একটাই ভাবনা ছিলো যে এই সব ঠিক করছে কি না। যখনই আকাশ একটু এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে তখনই তাকে থামিয়ে দেয়।  আকাশ এই অবস্থাকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে চেয়েছিল। আকাশ এখন আনিতার বড়বড় স্তন স্পর্শ করতে চায় বারবার।

মায়ের শরীরের সবচেয়ে নরম জায়গা স্পর্শ করে ধন্য হতে চায় সে। কিন্তু ঐযে, আনিতাকে বারবার আকাশকে বাধা দিয়ে থামিয়ে দেয়। আকাশ জানতো যে আনিতা এই সম্পর্কটা নিয়ে বিভ্রান্ত আর সে সময়ও চায়। কিন্তু আনিতার দিক থেকে কোনো অগ্রগতি না দেখে তার ধৈর্যের সীমা ছাড়িয়ে যাচ্ছিলো। best ma choti

আকাশ এই ৪ মাসে ৩ বার দিল্লি থেকে কোলকাতা আর কোলকাতা থেকে দিল্লি করেছে। এখন সে ট্রেনে উঠেছে এবং কলকাতা যাচ্ছে। পথের মধ্যে ভাবুক হয়ে কিছু একটা ভাবতে থাকে।)

আমি- এখন কি করব! মা নিজেকে প্রস্তুত হওয়ার নামই নিচ্ছে না। বারবার সময় চেয়ে যাচ্ছে কিন্তু  কোনোভাবে এগোতে চাচ্ছেনা। এবার আমাকে সামনে এগোতেই হবে, কিন্তু কিভাবে নিজেও জানিনা।  আমি তো তাকে আমার মনের সবটা ভালবাসা দিয়ে দিয়েছি। কিন্তু ফলাফল কিছুই হচ্ছেনা। আমি কোনোভাবে সামনে এগিয়ে যেতে আই। উফফফ, কবে কবে কবে!

(আকাশ এসব ভেবে যাচ্ছিল কিন্তু সে কোনো পথ খুজে পাচ্ছিলাম না।)

আমি- আমার হয়তো মাকে পাওয়ার চিন্তা বাদ দিতে হবে। হয়তো এভাবেই তার সাথে সময় পার করতে হবে। কিন্তু তাকে আমি আদর দিতে চাই। প্রচন্ড রকমের আদর যাকে বলে। আমার শৈশবের খাবার, আমার মায়ের স্তনে হাত রাখতে চাই বাধাহীনভাবে। আমি আমার জন্মস্থানকে মন ভরে দেখতে চাই। মায়ের দেহের প্রত্যেকটা অংশকে আমি ভালোবাসতে চাই মন দিয়ে। তার ওই বড়বড় স্তন, যেগুলো দেখে দুনিয়ার সবাই ফিদা, আমি তো তার ছেলে, কিভাবে ফিদা না হয়ে থাকতে পারি! best ma choti

(এসব মনে করতে করতে আকাশ খেয়াল করে তার কামদণ্ড দাঁড়িয়ে গেছে। দুইপা দিয়ে চাপ দিয়ে নিজেএ কামদণ্ডকে লুকিয়ে রাখার চেষ্টা করে। তখনই তার মনে পড়ে সেই দিনের কথা যেদিন সে তার মাকে প্রথম অন্য দৃষ্টিতে দেখেছিল। দিল্লিতে আকাশ যেদিন আনিতার “আহ আহ আহ” শীৎকার শুনেছিলো।

আকাশ আরও অনেক কিছু ভাবতে থাকে। সেদিন স্নানের সময় আনিতা আকাশের বুকে হাত রেখেছিলো আর বড় আদরের সাথে বুকে হাত বুলিয়ে যাচ্ছিলো। আবার চুমু খাওয়ার সময় আনিতা চোখ বন্ধ করে সেটার ফিল নিতে থাকে। নিজের জীভ আকাশের গালের মধ্যে ঢুকিয়ে দেয়, মাঝে মাঝে নিজেই আকাশের ঠোঁট চুষতে থাকে। এসব সব মনে পড়তেই একটা জিনিস আকাশের কাছে পরিষ্কার হয়ে যায়।)

মা এখনও নিজের যৌবনের স্বাদ পেতে চায়। নাহলে এসব চুমু খাওয়ার সময় কেন এমন করত আর যখনই আমি মাকে চুমু খাই তখন মায়ের কান অনেক গরম হয়ে যায় আর মায়ের মুখ থেকে “আহ উফ আহ আহ ওহ ওহ” শব্দ বের হতে থাকে।  এর মানে মা না চায়তেও সে একজন পুরুষের স্বাদ নিতে চায়। এজন্য চুমু খাওয়ার সময় মা আমার মাথা চেপে ধরে কিংবা আমাকে জড়িয়ে ধরে। মা একজন নারী যে একজন পুরুষকে চাচ্ছে। best ma choti

কিন্তু নিজের সন্তান হওয়ায় আমার সাথে পুরোপুরি জড়িয়ে যেতে পারছেনা, বাধা শুধু এই একটায়। সে আমাকে চায় তবে গর্ভের ছেলে বলে বেশ কনফিউজড।  এসব ভাবতে ভাবতেই আমার মুখে হাসি ফুটে ওঠে।  যেটা আমার সামনের সিটে আমার সামনে বসা একটা মেয়ে দেখছিলো আর হয়তো ভাবছিলো “এই ছেলেটা হাসছে কেন?”

এদিকে আমি আমার প্রশ্নের উত্তর পেয়েগেছি। হয়তো এখন আমার আঙ্গুল বাকাতে হবে, নয়তো সোজা আঙ্গুলে ঘি উঠবে না। আমাকে নির্লজ্জ হতে হবে আর মাকে অতিষ্ট করতে হবে, এটাই একমাত্র উপায়। আমার মায়ের ভিতরের নারী স্বত্ত্বাকে জাগিয়ে তুলতে হবে। আর মাথার ভিতর প্লান সাজাতে থাকি।

তখনই সামনে থাকা মেয়েটা বলে,
মেয়েটা- হ্যালো।
আমি- হাই।
মেয়েটা- কি ব্যাপার একা একা হাসছো কেন? best ma choti

আমি- খুব প্রিয় একজনকে মনে পড়ছে। তার নাম, চেহারা আমার মুখের ভাসতে থাকে সারাক্ষণ। আর যখন আমি তাকে দেখি তখনই আমার মুখের হাসি ফুটে ওঠে।
মেয়েটা- কে সেই লাকি মেয়েটা, আমি কি তাকে দেখতে পারি?

আমি মোবাইলের মায়ের একটা ছবি বের করে তাকে দেখায়, যেটা দিল্লিতে ঘুরতে থাকার সময় ওঠানো। মা সূর্যাস্তের দিকে তাকিয়ে আছে আর আমি পাশ থেকে ছবিটা তুলে ছিলাম। যায়হোক, মেয়েটা ছবি দেখে বলল,
মেয়েটা- বাহ অসাধারণ ছবি। কিন্তু ওনাকে তো তোমার সমবয়সী মনে হচ্ছেনা!

আমি- সমবয়সী কেন হবে! উনি আমার মা, যাকে আমি এই পৃথিবীর সমস্ত কিছুর থেকে বেশি ভালোবাসি। যার জন্য আমার এই পৃথিবীতে আসা তাকে হাসি মুখে দেখতে আমি আমার জীবন দিয়ে দিতে পারি।
মেয়েটা(অবাক)- আগে জানতাম মানুষ তার প্রেমিকাকে মনে করে মুচকি হাসি দেয়, কিন্তু মাকে মনে করে মুচকি হাসি দেওয়া মানুষ এই প্রথম দেখলাম। best ma choti

আমি- আমি এমনই, মাকেই আমি ভালোবাসি। (মনে মনে- তুমিতো জানো না এই ভালোবাসায় অনেক কিছুই আছে। আছে মায়ের আদর, আছে প্রেমিকার চুমু আরও কত কি!)
মেয়েটা- তোমার নাম্বারটা পেতে পারি?
আমি- কেন?

মেয়েটা- এমন মাকে ভালোবাসা ছেলের সাথে একটু বন্ধুত্ব করতে চাই।
আমি- আমি জানিনা তুমি কি ভাবছো, তবে আমি কখনোই কারো সাথে সম্পর্কে জড়াবো না।
মেয়েটা- কিন্তু কেন?
আমি- এর কোনো কারণ নেই। (মনে মনে- এর কারণ আমার মা, সেই তো আমার প্রেমিকা।)

এভাবেই বেশ কিছুক্ষণ কথা বলার পর ঘুমানোর সময় হলো। আমি শুয়ে শুয়ে প্লান করতে থাকি। best ma choti

(আকাশের মনে একটা প্ল্যান আসলো যে আনিতাকে অতিষ্ট করে তুলতে হবে আর এর জন্য আকাশ নির্লজ্জ হতে প্রস্তুত ছিলো।

ট্রেন কলকাতায় পৌছে যায় আর যথারীতি তার দাদু তাকে নিতে আসে, যার সাথে সে বাড়ি যায়।)

আমি বাড়িতে গিয়ে নিজের ঘরে গিয়ে রেস্ট নিই। একটু পর মা এসে আমাকে জড়িয়ে ধরে। আমার গালে চুমু দিয়ে বলে।
মা- তুই এসেছিস সোনা?
আমি- চলে এসেছি ডার্লিং আর তোমার জন্য কিছু নিয়ে এসেছি।

মা- কি এনেছিস আমার জন্য?
আমি- এই নাও চকলেট, একজন মিষ্টি জিএফের জন্য একটি মিষ্টি চকলেট।
মা- এই বয়সে চকলেট দিয়ে কি করব?
আমি- অন্য কিছুও দেবো জান, তুমি একবার চেয়ে তো দেখো!

(এই বলে আকাশও আনিতার গালে একটা চুমু দেয় আর আনিতা লজ্জায় লাল হয়ে যায়।) best ma choti

আকাশ কোলকাতা আসার সময় ভাবছিল যে সে এখন এগোতে চায় কিন্তু সবাই বাড়িতে থাকায় কিভাবে এগিয়ে যাবে এই জিনিসটা তাকে ভাবাচ্ছিলো। দিনের পর দিন কেটে যাচ্ছিল কিন্তু আকাশ কিছুই করতে পারছিলো না, শুধু আনিতার
গালে চুমু আর ঠোঁট চোষা ছাড়া। তবে অবশেষে আকাশের সামনে সেই দিন চলেই আসলো যেই দিনের অপেক্ষা সে এতোদিন ধরে করছিলো। আকাশের দিদা আর দাদু তাদের গ্রামে একটা প্রোগামের যাবে । এটা শুনে আকাশ খুব খুশি হয়ে যায়।)

সেদিন ছিল শনিবার,

খুব ভোরে দাদু আর দিদা গ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে যায়। তারা  চলে যাওয়ার সাথে সাথে আমি মাকে জড়িয়ে ধরি, মায়ের দেহ আমার দেহের সাথে চেপ্টে ধরে তার ঠোঁটে চুমু খাই। চুমু খাওয়ার সময় অনুভব করি মায়ের নিশ্বাস ভারী হয়ে যাচ্ছে। যার ফলে মায়ের ফোলা স্তন, যেগুলো আমার দেহের সাথে চিপকে ছিলো, সেগুলো আমার বুকে চাপ দিতে থাকে। আমি আমার মায়ের স্তনের বোটা ফিল করতে পারি। সাথে সাথে আমার দেহের উত্তাপ বাড়তে শুরু করে। best ma choti

আমি মাকে আরও টাইট করে জড়িয়ে ধরে তার নরম-কোমল বোটার ফিল নিতে থাকি। ওদিকে আমার প্যান্টের ভিতরে কেও নিজের উপস্থিতি জানান দিচ্ছে। আমি আবার মায়ের ঠোঁট চুষতে থাকি। প্রায় ৪ মিনিট মায়ের ঠোঁট চোষার পরেও আমি মাকে জড়িয়ে রাখি। আম এই অনুভূতির শেষ চাইনা এতো তাড়াতাড়ি। যেই স্তনের বোটা আমি শৈশবে বিনা বাধায় চুষে খেয়েছি আজকে তার অনুভূতি আরও নিতে চাই।

মা- আমাকে ছাড় আকাশ।
আমি- না, এখন না।

আমি আবার মাকে চুমু খেতে লাগলাম, ঠোঁট চুষতে চুষতে হাত তার নরম নিতম্বে নিয়ে গেলাম তবে মা এবার বাধা দিলোনা। কিন্তু যখনই হাত আমার বুকের সাথে লেপ্টে থাকা মায়ের নরম আর গরম স্তন স্পর্শ করতে গেলাম তখনই মা যথারীতি সামনে এগোতে বাধা দিল।  আর আমিও জোর করলাম না। মাকে জড়িয়ে ধরেই তার সাথে মিষ্টি মিষ্টি গল্প করলাম।  কিছুক্ষণ পর মা অফিস চলে গেল। best ma choti

এদিকে আমি ভাবতে লাগলাম যে কিভাবে মাকে গরম করবো, তার ভীতরের নারীসত্ত্বাকে বের করবো যে নারীসত্ত্বার তাড়নায় মা বারবার আমার স্পর্শ পেতে চায়বে। আমি এসব ভাবতে ভাবতেই সময় কাটাতে থাকলাম। এরপর প্রায় ৩ টার দিকে আমি মায়ের অফিসের সামনে গিয়ে তাকে বাড়িতে নিয়ে এলাম। এরপর আমরা দুজন একসাথে খাবার খেতে লাগলাম।

মা- তুই এখনও খাসনি কেন সোনা?
আমি- তোমাকে ছাড়া কিভাবে খাই মা?
মা- আমাকে এত ভালোবাসিস যে আমাকে ছাড়া খাবারও খাবি না?
আমি- তোমাকে ছাড়া খেতে আমার ভালো লাগে না মা।

মা- আচ্ছা, তাহলে কি সারাজীবন আমার জন্য এভাবেই অপেক্ষা করতে থাকবি?
আমি- হ্যাঁ মা, তোমার জন্য সব কিছুই করতে পারি। জীবন দিতেও দ্বিতীয় বার ভাববো না।
মা- নাহহহ, এটা কি বলছিস! তুইই তো আমার বেচে থাকার সাহারা। মরার কথা একদম বলবিনা বলে দিচ্ছি। (আতঙ্কিত হয়ে)
আমি- ঠিক আছে বলবোনা মা। তুমি তো আমার জীবন, আমার জান, কলিজা সবকিছু।  তোমার জন্য সবকিছু করবো।
মা- হুমমমমম, লাইন মারা হচ্ছে। best ma choti

আমি আর মা খাবার খাওয়া শেষ করলাম।
এখন আমার প্ল্যান ছিল যতটা সম্ভব মায়ের চিপকে থাকবো তাই প্লান করলাম মায়ের সাথে ধাক্কা খাবো।  আমি আমার ঘরে এসে মাকে ডাক দিয়ে দরজার সামনে থাকা পর্দার পিছনে লুকিয়ে থাকি। মা আমার ঘরে আসার সময় পর্দার পিছনে আমাকে দেখে ফেলে আর সাইড হয়ে ঘরের মধ্যে ঢুকে পড়ে।  এভাবেই আমার প্রথম প্ল্যান ব্যর্থ হয়। আমি আরো দুইবার অন্যভাবে মায়ের সাথে ধাক্কা খেতে যাই কিন্তু মায়ের বিচক্ষণতার জন্য সেটাও ব্যর্থ হয়।

যায়হোক মা আমার উদ্দেশ্য বুঝতে পেরে আমার ঘর থেকে চলে যায়। আমি কিছুক্ষণ চুপচাপ বসে থেকে আবার মায়ের কাছে যাই। কিন্তু বাইরে বের হয়ে হলরুমে কিংবা মায়ের ঘরে তাকে পাইনি। ভাবলাম মা তো প্রতিবেশীদের বাড়িতে যায়না তাহলে হয়তো ছাদে গিয়েছে। আমি দৌড়ে ছাদে গিয়ে দেখি মা মেলে দেওয়া কাপড় গোছাচ্ছে। মা মেলে দেওয়া শাড়ি গোছাচ্ছিলো আর আমি  দীর্ঘ নিঃশ্বাস নিয়ে ধীরে ধীরে মায়ের কাছে যাই। এরপর
পিছন থেকে মায়ের কোমর শক্ত করে জড়িয়ে ধরে তাকে শূন্যে তুলে ধরি। best ma choti

মা- আহহহহ, আমাকে  ছাড় আকাশ।
আমি- মোটেও না। একদম ছাড়বো না।
মা- প্লিজ আকাশ ছাড়, কেউ দেখে ফেলবে।
আমি- না তুমি নিজেই মুক্ত হও দেখি।

(আনিতা নিজেকে ছাড়ানোর চেষ্টা শুরু করে কিন্তু আকাশ তাকে এতো শক্ত করে জড়িয়ে ধরেছে যে সে নিজেকে মুক্ত করতে পারছেনা। আনিতা ঘাবড়ে গিয়ে হাত-পা ছুড়তে থাকে। ওদিকে আনিতার এমন কান্ডে আকাশ হোহো করে হাসতে থাকে। কিন্তু এই হাসি বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়না। আনিতার হাত-পা ছোড়ার জন্য হঠাৎ তার এক পা ভুলক্রমে আকাশের লিঙ্গে আঘাত করে। যার কারণে আকাশ আনিতাকে ছেড়ে দিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়লো।) best ma choti

আমি-আআআআআআহহহহহহহহহহহহহ
মা- সরি আকাশ, কি হয়েছে তোর কি হয়েছে?
আমি-আহহহহ, অনেক লেগেছে মা, আহহহহহহ।
মা- মাফ করে দে সোনা। আমি বুঝতে পারিনি এমন হবে।

আমি মাটিতে শুয়ে আমার পরুষাঙ্গে হাত রেখে চিত হয়ে কাদতে লাগলাম।  মা আমার দিকে তাকিয়ে দুঃখিত, দুঃখিত বলে যাচ্ছিলো। মায়ের মুখে অনেক ভয় দেখা যাচ্ছিল।

মা-আমি দুঃখিত আকাশ, আমি ভুলবশত এমন আঘাত করে ফেলেছি।
আমি- আমার খুব কষ্ট হচ্ছে মা, আহহহহহহহহহ। best ma choti

(আনিতা অনেক ভয় পেয়ে যায় আকাশের কান্না আর আহহহ আহহহ আহহহ শুনে। আনিতা কি করবে বুঝতে পারছিলোনা, আকাশকে শান্ত করার চেষ্টা করে তবুও শান্ত করতে পারেনা। সে আকাশকে কোনো রকমে দাড় করিয়ে আকাশের হাত নিজের ঘাড়ে তুলে নেয়। এরপর একপাশে সাপোর্ট দিয়ে আকাশকে নিয়ে নিচে নেমে আসে।

আকাশকে তার বেডরুমে নিয়ে যায়। আকাশের শক্ত শরীর আনিতার জন্য কষ্টদায়ক ছিলো তবুও ছেলের জন্য মা এতোটূকু তো করতেই পারে। আনিতা আকাশকে বিছানায় শুইয়ে দেয়। আকাশ বিছানায় শুয়ে শুয়েও কাতরাচ্ছিলো , এতে আনিতার মনের ভয় আরও বাড়তে থাকে।)

মা – তুই শুয়ে থাক সোনা আমি বরফ আনছি এখনি।

(আনিতা ফ্রিজ থেকে বরফ বের করে সেটা পলিথিনে ভরে আকাশের ঘরে নিয়ে আসে আর সেটা আকাশকে দেয়। আকাশকে বরফের ছ্যাক দিতে বলে সে ওখান থেকে চলে যায়। আনিতা চলে যেতেই আকাশের মুখে হাসি ফুটে ওঠে কারণ এতোক্ষণ যেটা হচ্ছিলো এটা তার পরিকল্পনার একটা অংশ ছিল। আকাশ বরফ তার প্যান্টের উপর রেখে আবার আহ আহ আহ করতে থাকে। আনিতার গলা শুকিয়ে যায়, তার চোখে জল চলে আসে। আকাশের এমন কাতরানোর শব্দ শব্দ শুনে সে দৌড়ে আকাশের ঘরে চলে আসে।

ক্রমশ…………

  bangala chati galpa হাত দিয়ে আপু তার দুধ ধরতে দিলো

Leave a Reply