romantic choti মন্দের ভালো – 10: এই মেঘ এই জ্যোৎস্না  by nextpage

Bangla Choti Golpo

bangla romantic choti. দিন কয়েকটা এতই ব্যস্ততার চাদরে মোড়া ছিল যে নিজের দিকে নজর দেবার খানিকটা মূহুর্ত খোঁজে বের করা মুশকিল হয়ে পড়েছিল। ক্লাইন্টদের সাথে মিটিং, সাইটের ভিজিট করা, অফিসের কাজ সবকিছু সামাল দিতে দিতে দিন শেষে শরীরটা আর কুলিয়ে উঠতে পারে না। বসের চোখের মনি হলে যেমন সুবিধে আবার সময়েতে সেই সুবিধাটাই হাড়ে হাড়ে টের পেতে হয়। এই জন্যই হয়তো কারও গুডবুকে না থাকাটাই ব্যাটার, তোমার জীবন তুমি তোমার মতই কাটাও ডোন্ট কেয়ার।

না এমন ছন্দ ছাড়া জীবনটা কিছু সময়ের জন্য উপভোগ্য হতেই পারে তবে বৃহৎ সময়ের জন্য এতো মানুষের পদদলিত পৃথিবীর বুকে কখনো না কখনো বড্ড নিসঙ্গ একাকি হয়ে যাবে। একাকী কোন ভিড় রাস্তায় হেটে চলেছো কিন্তু কেউ তোমার মুখের দিকে একটিবার তাকিয়ে পর্যন্ত দেখছে না সেটা যে কতটা যন্ত্রণার সেটা হয়তো মৃত্যুর প্রহর গোনতে থাকা মানুষটার চেয়ে আর কেউ ভালো ব্যাখ্যা করতে পারবে না। তাই যতই চাই না কেন একা থাকার দিন শেষে ছায়াটাও হন্য হয়ে একটা অবলম্বনের খোঁজ করে।

romantic choti

সারাদিন শেষে যখন বাড়ি ফিরে যায় শরীরের শেষ প্রাণবিন্দু টা তপ্ত ধরনীর বুকে উবে যেতে চায় কিন্তু দরজার ওপাশে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করা মানুষটার হঠাৎ প্রাণোচ্ছল হয়ে উঠা মুখের হাসিটা নতুন শক্তির সঞ্চার করে। মমতাময়ীর কোমল আঁচলের স্পর্শে মুখমন্ডলে জমে থাকা লবণাক্ত কর্দক ঘামের সাথে ক্লান্তিটাও মুছে যায়। নিজের প্রাণপাখিটা যখন ছুটতে ছুটতে এগিয়ে আসে তখন কোন অদৃশ্য শক্তি এসে শরীরে উদ্যমের আগমন ঘটায় যেটার রেশ হয়ে মলিন মুখটাতেও হাসি ফুটে উঠে।

বা হাতটা বশীভূতের মত পকেটের ভিতর থেকে চকলেট গুলো যক্ষের ধনের মত আগলে বেড় করে আনে। “ছেলেটাকে একদন্ড জিরিয়ে নিতে দে”- দূরে উল্টোদিকে মুখ করে আড়ালে বসে থাকা সদা গাম্ভীর্যের ছাপে ঢাকা মুখের আওয়াজ টাও হৃদয় টাকে শীতল করে দিয়ে যায়৷ শেষবেলায় ঘুমের দেশে হারানোর আগে মায়ের হাতটা যখন কপাল জুড়ে সঞ্জীবনীর পরশ বুলায় সেটাই যে আগামী সকালের নতুন জীবনী রসদের কাজ করে। romantic choti

নিজের রুমে বসে গতকালকের ক্লাইন্ট মিটিং এ যে ডিজাইন টা এপ্রোভ হয়েছে সেটা নিয়ে আরেকটু কাটাছেঁড়া করার মত পয়েন্ট গুলো মার্কিং করে রাখছে৷ হাতের কাজ টা গুছিয়ে পা দুটো সামনের দিকে ছড়িয়ে দিয়ে হা দুটো মেলে দিয়ে শরীরের আড়মোড়া টা ভাঙে। আপাতত একটু অবসর, অবসর সময়টাতেই মাথায় হয়তো ভূত গুলো চেপে বসে। মনে মনে কি ভেবে যেন সেটা বাস্তবায়নের ফলাফলের কল্পনায় ছোট্ট হাসি  টা অদৃশ্য ভাবেই ফুটে উঠে। ফোন টা তুলে কাউকে ডেকে পাঠায় রুদ্র। দরজা টা খোলার শব্দ হতেই মুচকি হেসে অভ্যর্থনা জানানোর ভঙিতে চেয়ার ছেড়ে উঠে দাঁড়ায়।

-আসুন আসুন মিস ললিতা, সিটি কলেজ ব্যাচ-২০১৪, গোলপুকুর পাড়, নেতার মেয়ে, ডেয়ারিং ভাব, শত শত ছেলের ক্রাশ।

-(মুচকি হাসিতে এগিয়ে এসে চেয়ার টেনে বসতে বসতে) এই রিতার সব ইনফরমেশন মনে আছে তাহলে।

-(হা হা হা করে হাসতে থাকে) সব মনে থাকে আমার, একটু অতলে চলে গিয়েছিল আরকি। হালকা নাড়াচাড়া করে সব আবার বের করে আনলাম।

-উহু ভাট বকো না রুদ্র দা। তোমার মনে থাকলে সেদিনই চিনতে পারতে। নিশ্চিত আমার তথ্য জানতে লোক লাগিয়ে ছিলে। romantic choti

-আরে না, সত্যি বলছি। সেদিন দেখার পরই কেমন চেনা চেনা লাগছিলো। কলেজে যেই মেয়ের পেছনে সবাই পড়ে থাকতো আর সেই মেয়ে সিনিয়র একজনের পেছনে লেগে আছে ওমন কাউকে ভুলা যায়।

-মোটেও তোমার পেছনে লেগে ছিলাম না। (সশব্দে হাসতে থাকে) তোমাকে ভালো লাগতো তাই তোমার কাছাকাছি থাকতে চাইতাম কিন্তু তুমি তো পাত্তাই দিতে না তাই জেদ করে তোমার পেছনে থাকতাম সবসময়।

-শুধু তোমাকে কেন আমি তেমন কাউকেই পাত্তা দেই নি কখনো। তবে তোমার মত পিছনে আঠার মত কেউ লেগে থাকে নি৷ সেই তোমাকে পিছু ছাড়াতে কি শর্ত দিয়েছিলাম মনে আছে।

-ও বাবা থাকবে না আবার। ওমন কথা বলার সাহস আর কারও ছিল কলেজে? বারবার তোমাকে প্রপোজ করেছি তুমি না করে দিয়েছো৷ শেষে একদিন তুমি বললে যদি সবার সামনে তোমাকে কিস করি তবে তুমি ভেবে দেখবে।

-আমিও তো হতভম্ব হয়ে গিয়েছিলাম যখন তুমি রাজি হয়ে গেলে। কই ভাবলাম লজ্জায় তুমি না করবে উল্টো তুমি এক কথায় রাজি হয়ে গেলে। romantic choti

-কি করবো বলো? তোমাকে তো তখন পাগলের মত ভালবাসতাম। কিন্তু প্রথম কিস টা এভাবে করবো সেটা কখনো ভাবি নি৷ যেই তুমি শর্ত দিলে আমার মন বললো সে যা খুশি হোক তাতে তুমি যদি আমাকে ভালবাসো তাতেই খুশি।

-তুমি যে এমন পাগলি সেটা জানলে এই শর্ত রাখতামই না৷ এখনো মনে আছে আমি কলেজ থেকে বের হচ্ছি। গেটের কাছে তখনো অনেকেই জটলা করে দাড়িয়ে আছে আর হঠাৎ তুমি পেছনে থেকে ডেকে দাড় করালে, আর কিছু বুঝে উঠার আগেই আমার ঠোঁট মুখে পুড়ে নিলে। আমার তো দম বন্ধের মত অবস্থা। সবাই তাকিয়ে আছে আমাদের দিকে। নিজেকে কেমন পাখির পালকের মত হালকা লাগছিলো এই বুঝি কেউ ফু দিয়েই উড়িয়ি দিবে আমায়।

-(মাথা নিচু করে) থাক না রুদ্র দা ওসব কথা আমার লজ্জা করছে, ওসব পাগলামির কথা মনে করে।

-প্রথমে অপ্রস্তুত থাকলেও পরে কিন্তু বেশ লেগেছিল আমার। এমন ডেয়ারিং কাজের ফিলিংস টাই অন্যরকম। তবে মেয়েরাও যে এমন সাহস দেখাতে জানে সেটা জানাই ছিল না।

-তুমি থামবে, দরকার হলে আমি আরেকবার কিস করবো তবুও তখনকার কথা আর বলো না। পুরনো স্মৃতিতে আমার সেই আগের পাগলামি ভাবটা জেগে উঠে। romantic choti

-(একটু এগিয়ে এসে, কোমড় বাকিয়ে নিচু হয়ে মুখটা রিতার কাছাকাছি নিয়ে) তবে তো আরেকটা চুমো পেতেই পারি।

-(রিতা কিছু বলছে না আবার সরেও যাচ্ছে  না। ভ্রু কুঁচকে কিছু একটা ভেবে চোখ দুটো বন্ধ করে নিলো)

মৌনতাকে সম্মতি আর চোখ বন্ধ করাকে নিমন্ত্রণ ধরে নিয়ে রুদ্র আরেকটু এগিয়ে যায়। চোখ বন্ধ অবস্থাতে অপরূপ লাগছে রিতা কে, চশমাটা খুলে  নিতেই আরও ঠিকরে পড়ছে যেন সেই সৌন্দর্যের ছটা। হালকা করে স্পর্শ করে কোমল ঠোঁটে, ছোঁয়া পাওয়া মাত্রই ঈষৎ ফাঁক গলে ঠোঁটের পাপড়ি গুলো নিজ আয়ত্ত্বে নিয়ে নেয়৷

লালা আর লিপস্টিকের সংমিশ্রণে কেমন এক আঠায় যেন একে অপরের সাথে লেগে লেগে যাচ্ছে বারবার। ধীর গতিতে সমুদ্র মন্থনের মতই আরও প্রকট হতে থাকে চুম্বন মূহুর্ত। চুমোর অবর্ননীয় স্বাদের উপভোগ্যতা বাড়িয়ে তুলতে রিতা নিজেকে এলিয়ে দেয় চেয়ারে। স্থান কাল ভুলে দুজনে ডুবে গেছে অনুভব আর অনুভূতির অতল গহ্বরে। romantic choti

সকাল থেকেই ঝুম বৃষ্টি হয়েই চলেছে, ঘর থেকে বের হওয়া দায়। ভারী বৃষ্টির প্রকোপে ছাতি গুলোর অসহায় আত্মসমর্পণ করা ছাড়া আর কিছুই করার থাকে না। এমন দিনে কাঁথা মুড়ি দিয়ে একটা ঘুম দেয়াটাই অধিকাংশ তরুনের অগ্রাধিকারেে মাঝেই পড়ে। তবে রুদ্র কে সেই ঘুমকে বিসর্জন দিয়ে কলেজে আসতেই হলো একটা ইম্পর্ট্যান্ট ল্যাব ক্লাসের জন্য। বৃষ্টির অজুহাতে বেশিরভাগ স্টুডেন্টই কলেজ বাংক করেছে৷ ল্যাব ক্লাসটা হলেও বাকি ক্লাস নেবার কোন নামগন্ধ নেই।

ক্লাস টা বলতে গেলে একদম ফাঁকাই, সামনের দিকে কয়েকজন ছেলে মেয়ে নিচু গলায় গান গাইছে, কেউ আবার এসাইনমেন্ট কপি করছে। রুদ্র শেষদিকের একটা বেঞ্চে জানালার কাছে কানে হেডফোন গুঁজে বসে আছে। করিডোর ধরে আরেকজন আসছে এদিকেই, সদা চঞ্চল চোখ কাউকে খুজে বেড়াচ্ছে। চলতি পথে প্রতিটা কক্ষে উকি দিয়ে সেই মানুষটাকে খুঁজে বেড়াচ্ছে। একটা কক্ষে এসে রুদ্রের দেখা পায় রিতা, না রুদ্র ওকে দেখেনি। রিতা এগিয়ে যায় রুদ্রের দিকে, ওর সামনের বেঞ্চে বসে এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে নিজের প্রেয়সীর দিকে। romantic choti

ওর সামনে একজন বসে ওমন ভাবে তাকিয়ে আছে সেদিকে কোন ভ্রুক্ষেপ নেই যেন রুদ্রের। এমন করে উপেক্ষিত হওয়াটা কতটা যন্ত্রণার হয় সেটা যে ভালবাসতে শিখেছে সেই জানে, সদা হারানোর ভয় মনকে ভীত করে রাখে যদিও সে মানুষটি কখনোই তার ছিল কিনা সেটাও জানা নেই। তবে ওয়ান সাইড লাভ এর সুবিধাও আছে অনেক সে নিয়ে না হয় পরে কথা হবে।

-রুদ্র দা, কি ভাবছো ওমন করে??

-(হঠাৎ কারও ডাকে বর্তমানে সম্বিত ফিরে রুদ্রের) কই কিছু না তো। তুমি এখানে কখন এলে।

-এই দেখলে তো আমি কখন এলাম সেটাও খেয়াল করলে না, এতটাই ভাবনায় মগ্ন ছিলে তুমি৷ তা কার কথা ভাবছিলে? আমার?

-তোমার কথা ভাবতে যাবো কেন?

-বাহ! বেমালুম ভুলে গেলে??কি বলেছিলে তুমি মনে নেই? আমি তো আমার কথা রেখেছি।

-ওহহ, আরে পাগলি মেয়ে তুমি এখনো সেটা নিয়েই পড়ে আছো। আমি তো ভাবলাম… romantic choti

-এরমানে তুমি আমাকে কখনোই ভালোবাসবে না??

-উফফ, আচ্ছা জ্বালাতন শুরু করেছো তো তুমি। ভালবাসা কি বুঝো সেটা??

-আমার তো এতো বুঝে কাজ নেই। আমি শুধু জানি আমি তোমাকে ভালবাসি আর আমার তোমাকে চাই।

-এটাকে ভালবাসা বলে না, জাস্ট এট্ট্রাকশন। আজ আছে কাল নাও থাকতে পারে। আজ আমাকে ভাললাগছে কাল হয়তো আর লাগবে না। ভালবাসলেই কাউকে পেতে হবে সেটা তোমাকে কে বললো? যদি সত্যিই ভালবাসো তবে পারবে অপেক্ষা করতে যেমন আমি করছি এমন কারও জন্য যার সাথে হয়তো আর কখনই দেখা হবে না। সে এখন কেমন দেখতে, সে অন্য কাউকে ভালবাসে কিনা কিচ্ছু জানি না তবুও অপেক্ষা করি।

-আমি তোমার মত এত কিছু জানি না। আমি বুঝি আমি তোমাকেই ভালবাসি তবে কেন তোমাকে পাব না?? romantic choti

-বোকা মেয়ে, আমিও তোমাকে ভালবাসি কিন্তু বন্ধুর মত, ভালো বন্ধু। সেখানে চাওয়া পাওয়ার কোন হিসেব নেই। ধরতে পারও আমি অনেকটা বাতাসের মত, সবার পাশেই আছি কিন্তু কারও সাথে নয়। তুমি চাইলে আমি তোমার বন্ধু হয়ে সবসময় পাশে থাকবো। সবসময় তোমার পাশে পাবে, তুমি আমাকে ধরতে পারবে, ছুতে পারবে।

তোমার সবকিছু আমার কাছে শেয়ার করবে, সুখ দুঃখ আনন্দ হতাশা সব ভাগাভাগি করে নেব। বিপদে তোমার সামনে থাকবো তোমার খুশিতে নিজেকে শামিল করবো কিন্তু তুমি যেমন করে চাইছো সেভাবে পাবে না। দেখো তুমি আমার চেয়ে আরও ভালো কাউকে পাবে জীবনে যে তোমাকে অনেক ভালোবাসবে।

-(কিছুক্ষণ থম মেরে বসে তির্যক চোখে রুদ্রের দিকে তাকিয়ে) তবে তুমি কি ভালো না??

-আরে বাবা কাকে দিচ্ছি আমি রামের পাঠ। না আমি ভালো না, আমি অনেক খারাপ ছেলে সুযোগ পেলে তোমার সাথেও খারাপ কিছু করে ফেলবো।

-যাহ মিথ্যে বলছো, মোটেও ওমন না তুমি। আর তুমি চাইলে আমি সব দিতে রাজি। romantic choti

-(এমন উত্তর শুনে হতভম্ব রুদ্র) এই মেয়ে তুমি যাও তো। তোমার মাথা খারাপ হয়ে গেছে যা তা বলছো।

-রাগ করছো কেন রুদ্র দা, থাক আর কিছু বলবো না। আচ্ছা তোমার ক্লাস আছে?

-না কেন?

-চলো একটা জায়গায় যাবো।

-এই বৃষ্টিতে কোথায় যাবে, তুমি কি গাড়ি নিয়ে এসেছো?

-(মুখ বেকিয়ে ভেংচি দেবার ভঙ্গিতে) বৃষ্টিতে ভিজতে যাবো, গাড়িতে করে ভিজা যায় নাকি?? যাবে কিনা বলো

-(মেয়েটার অদ্ভুত একটা ক্ষমতা আছে, ওর আবদার উপেক্ষা করতে পারে না রুদ্র) আমার কিন্তু ঠান্ডার ধাত আছে জ্বর উঠে যায়, বেশিক্ষণ ভিজতে পারবো না।

-জ্বর উঠলে আমি সেবা করবো তোমাকে ঠিক আছে! এখন চলো তো. romantic choti

রুদ্রের হাত ধরে টানতে টানতে বাইরের দিকে যেতে থাকে। কলেজ থেকে বেরিয়ে ফুটপাত ধরে হাটতে থাকে ওরা দুজনে৷ বৃষ্টির কারণে রাস্তাটা অনেকটাই ফাঁকা হয়ে আছে, মাঝে মাঝে একদুটো গাড়ি যাবার সময় জল ছিটিয়ে দিয়ে যাচ্ছে। রুদ্র কে অবাক করে দিয়ে রিতা লাফ দিয়ে ফুটপাত থেকে রাস্তায় নেমে যায়, পাশে জমে থাকা জলটাতে বাচ্চাদের মত লাফালাফি করতে থাকে৷ এ এক জাদুকরী আবহ বলতেই হয়, এমন আবহাওয়া মানুষের মনের সুপ্ত শিশু ভাবটাকে জাগিয়ে তুলে৷

রুদ্র এক দৃষ্টিতে দেখছে রিতা কে, বলতে গেলে এমন ভাবে কখনও দেখ হয় নি ওকে। বেশ লম্বা চুল মেয়েটার কোমড় অব্দি ছাপিয়ে গেছে, পাতলা গড়নের শরীরটা পালকের মতই জলের উপর যেন ভাসছে। সামনের দিকের চুল গুলো মুখটাকে ঢেকে দিয়েছে, সেই চুল গুলো বেয়ে টপটপ করে জল পড়ে ভিজিয়ে দিচ্ছে বুকের জায়গাটা। বাদামি রঙের সালোয়ার কামিজে যেন এক জলপরী দাড়িয়ে আছে রুদ্রের সামনে। ভিজে জামা টা গায়ের সাথে লেপ্টে রয়েছে, ভেতরের শরীরটাকে একটু হলেও দৃষ্টিগোচর করতে যার কৃতিত্ব অনেক। romantic choti

বুকটা ওরনা দিয়ে ঢাকা থাকলেও ভিজে যাওয়া শরীরে সেটা দিয়ে বক্ষদেশ আড়াল করা বেশ কষ্টসাধ্য বৈকি৷ স্তনদ্বয় খুব ভারী নয় সেটা বুঝা যাচ্ছে তবে এমন পাতলা গড়নের শরীরে সে দুটো বেশ মানিয়ে আছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। সরু কোমরের পর হালকা উঁচু নিতম্ব আলাদা এক আকর্ষণ তৈরী করে রেখেছে৷ রুদ্র যে রিতাকে দেখছে সেটা আচ করতে পারে, হঠাৎ দু’হাতে জল নিয়ে রুদ্রের দিকে ছুড়ে দেয়। “এভাবে দেখা কিন্তু ভাল না”- হাসি মিশ্রিত রিতার কথাটায় রুদ্রের একটু হলেও লজ্জায় পড়তে হয়।

-অনেক হয়েছে এবার জল থেকে উঠে এস।

-প্লিজ আরেকটু।

-(কথায় কাজ হবে না বুঝে রুদ্র এগিয়ে গিয়ে হাত ধরে ফুটপাতে নিয়ে আসে) আর না ঠান্ডা লেগে যাবে। romantic choti

আবার দুজনে চলতে শুরু করে, মাঝে মাঝে একজন আরেকজন কে আড় চোখে দেখে চলেছে। সামনে চায়ের স্টল দেখে চা খাবার বায়না ধরে রিতা, ত্রিপলির ভিতরে মানুষে ঠাসা বসার জায়গা নেই। ওরা দুজনে চায়ের কাপ হাতে ফুটপাতে বসে পড়ে, বৃষ্টিতে ভিজতে ভিজতে চা খাওয়ার মাঝেও যে অন্যরকম একটা আনন্দ, উত্তেজনা বা ভাললাগা কাজ করে সেটা আজই প্রথম জানলো দুজনেই।

এর মাঝেই দু একবার হাঁচি দিয়ে ফেলেছে রুদ্র, সত্যিই ওর ঠান্ডার ধাত আছে। রুদ্রকে হাঁচি দিতে দেখে রিতা বাড়িতে চলে যাবার সিদ্ধান্ত নেয়৷ রুদ্র একটা রিক্সা ডেকে রিতা কে উঠিয়ে দেয় কিন্তু সে একা যেতে নারাজ, রুদ্র কে তার সাথে যেতেই হবে৷ অনেক করে বুঝানোর পড়েও কোন লাভ হলো না, শেষমেশ রুদ্র কে রিতার সাথেই যেতে হলো।
বাড়ির কাছে আসতেই দারোয়ান এসে গেট খুলে দিলো।

-এবার আমি যাই তাহলে?

-একি কথা এভাবে ভিজে শরীরে যাবে কিভাবে, এমনিতেই তো ঠান্ডা লেগে গেছে মনে হচ্ছে। চলো ভেতরো চলো, মা জানলে রাগ করবে। romantic choti

-আরে না কিচ্ছু হবে না, আমি চলে যাব তুমি যাও বাসায়।

-কোন কথা শুনবো না, ভিজে শরীরে নির্ঘাত জ্বর উঠবে। মাথা টা না হয় একটু মুছে নিলে।

যুক্তির কাছে আর টেকা গেল না, রুদ্রকে বাসার ভিতরে যেতেই হলো। বসার ঘরে বসিয়ে রিতা যেন কাকে খুঁজতে চলে গেল। আওয়াজ শুনে বুঝা যাচ্ছে মা মা বলে ডাকছে, কিন্তু কেউ সারা দিচ্ছে না তো। বের হয়ে আসে ওদিক থেকে

-চুমকি আন্টি ও চুমকি আন্টি মা কোথায়?
কোন একটা রুম থেকে আওয়াজ আসে

-ম্যাডাম তো একটু বের হলো কোথায় গেছে বলে যায় নি তবে চলে আসবে তাড়াতাড়ি।
রুদ্রের দিকে এগিয়ে এসে

-চলো আমার সাথে জামা কাপড় টা বদলে নিবে। romantic choti

-না না আমি ঠিক আছি।(এক সাথে আরও কয়েটা হাঁচি দেয় রুদ্র)

-ঠিক কতটা আছো সেটা তো দেখতে পাচ্ছি। ভিতরে চলো জামা কাপড় পাল্টে নেবে।

ভিতরে একটা রুমে গিয়ে রিতা আবার কোথায় উধাও হয়ে গেল, কিছুক্ষণ পর লুঙ্গি আর পাঞ্জাবি আরেক হাতে টাওয়াল নিয়ে এসে জামা কাপড় পাল্টে নিতে বললো রুদ্রকে। এবার আর অনুরোধের সুরে নয় যেন আদেশ করছে সে রুদ্র কে। রুদ্র লুঙ্গি পাঞ্জাবি হাতে নিয়ে বাথরুমের দিকে চলে গেল। চেঞ্জ করে বাইরে আসতেই দেখে এর মাঝে রিতাও চেঞ্জ করে নিয়েছে, গায়ে একটা টি শার্ট আর ঢোলা প্যান্ট। রুদ্রের ভিজে জামা প্যান্ট গুলো হাত থেকে নিয়ে আবার উধাও, রুদ্রের ঠান্ডা ঠান্ডা লাগছে সে বিছানাতে গা এলিয়ে দেয়।

কিছুক্ষণ পর রিতার ডাকে চোখ খুলে দেখে ওর হাতে একটা ট্রে তে কিছু নিয়ে এসেছে। ভিজে যাওয়া চুল গুলো পুরোপুরি শুকায় নি, সেগুলো পিছনে ছড়িয়ে রেখেছো রিতা। তাতেই যেন ওকে আরও অপরূপা লাগছে, সাধারণ সাজেই অসাধারণ সৌন্দর্যের উজ্জ্বল দ্যুতি ছড়াচ্ছে। মন্ত্রের মত রুদ্রকে আকর্ষিত করছে নিজের দিকে, যেন কোন মায়াবিনী তার মায়ার প্রভাব বিস্তার করেছে রুদ্রের উপরে রুদ্র যেন আজ তার বশীভূত কোন মানুষ সে তার ইচ্ছে মত চালনা করতে পারবে তাকে। নিজের দৃষ্টি কিছুতেই ফেরাতে পারছে না রুদ্র। romantic choti

রুদ্রের চাহনিতে লজ্জায় নিজিকে একটু গুটিয়ে নেয় রিতা, ওর মনে হচ্ছে প্রেয়সীর চোখের আগুনেই যেন সে জ্বলে পুড়ে আজ ছাড়খার হয়ে যাবে।

-কি গো রুদ্র দা কিছু খাচ্ছো না কেন?

-(তন্দ্রা ভাঙার মতই হুড়মুড় করে উঠে) হ্যা কিছু বললে?

-চা টা ঠান্ডা হয়ে যাচ্ছে, তোমার জন্য ডিম টোস্ট করালাম সেটাও খাচ্ছো না।

-এইতো খাচ্ছি… তাড়াহুড়ো করে ডিম টোস্ট মুখে পুড়ে নেয়।

-একটা কথা রাখবে?

-(মুখ ভর্তি খাবার নিয়েই কোন ভাবে বলে) কি?

-তোমাকে তো আর পাবো না কোনদিন নিজের করে, আজকের জন্য আমার হবে??

-(প্রচন্ড ভিষম খেয়ে কাশতে থাকে, রিতা জলের গ্লাস টা এগিয়ে দেয় একটু সামলে নিয়ে) তোমার কি মাথা খারাপ নাকি? কিসব বলছো, ভেবে বলছো? romantic choti

-এতো ভেবে কি হবে? মনে যা আসলো সেটাই বলে দিলাম, প্লিজ আজকের জন্য আমার হয়ে যাও আর কখনো চাইবো না। তুমি যা বলবে তাই শুনবো।

-ভুল করছো তুমি রিতা, তুমি আমার ভালো দিকটাই দেখেছো তাই মনে মনে আমাকে নিয়ে একটা ভালো ছবি একেছো আর সেটাকেই ভালবাসছো। কিন্তু বাস্তবে আমি ততটাও ভালো নই, বিশ্বাস করো আমি খুব নোংরা মানুষ খুব খারাপ শুধু ভালোর মুখোশ পড়ে চলি। এমন বড্ড খারাপ ছেলেটাকে কেউ ভালবাসে নাকি?

-বারে, যাকে ভালবাসবো তার ভালোটাকে ভালবাসবো আর খারাপ টাকে বাসবো না সেটা হয় নাকি। তার সবটাকেই ভালবাসবো, কারণ সবটাই তো আমার।

-তুমি বুঝতে পারছো না, আমি কিন্তু খারাপ পল্লী তে পর্যন্ত যাই। আমার চরিত্রের ঠিক নাই, ভেবে দেখ এমন কাউকে তুমি তোমার করে চাইবে?

-আচ্ছা তুমি যাকে ভালবাসো মানে যার জন্য অপেক্ষা করছো বললে সে যদি ফিরে তোমার কাছে আর সে তোমাকে জানালো তার সাথে আগেও অনেকের ফিজিক্যাল রিলেশন হয়েছে তখন কি তাকে আর ভালোবাসবে না তাকে আর তোমার করে চাইবে না? এতই সস্তা ভালোবাসা? সে তো সব স্বীকার করেই তোমার কাছে তার ভালবাসার কাছে ফিরতে চাইছে। romantic choti

-(রুদ্র আর কিছু বলতে পারে না, আসলে বলার মত কিছুই খুঁজে পায় না। সব যুক্তি তুচ্ছ মনে হচ্ছে আজ, মেয়েটা যেন ওকে ভিতর থেকে ভেঙে দিচ্ছে তাহলে মেয়েটার কাছে কি সে হেরে গেল)

-কি হলো এমন স্ট্যাচুর মত বসে আছো কেন? একটা চুমো খাই তোমাকে? সেদিন তো এতো মানুষের সামনে ঠিক মত খেতে পারে নি।

-(বশ্যতা স্বীকার করা মানুষের মত রুদ্র মাথা নাড়িয়ে সম্মতি দেয়, এতদিন সে চুমো খেয়েছে আজ মেয়েটা নাকি ওকে চুমো খেতে চায়। মেয়েটার কথা রাজি হলো কেন, তবে কি মেয়েটা তার উপর অধিকার ফলাতে চাইছে। কিন্তু কিসের অধিকার, সেই অধিকার তো রুদ্র তাকে দেয় নি, নাকি ভালবাসালে এভাবেই আদায় করে নিতে হয়)
রিতা খাবারের ট্রে টা নিজেদের মাঝখান থেকে সরিয়ে দূরত্ব টা কমিয়ে দেয়, আরও এগিয়ে যায় রুদ্রের দিকে। রুদ্র আগের মতই সটান হয়ে বসে আছে, আর অপেক্ষা করছে সময়টা কত দ্রুত কাটানো যায়। দুষ্টু একটা হাসি হেসে রিতা তার নরম ওষ্ঠ দিয়ে রুদ্রের ঠোঁটে হালকা পরশ বুলায়।

হঠাৎই ভাইব্রেশনে থাকা রুদ্রের ফোনটা বেজে উঠে, রিংটোনের শব্দে দুই কপোত-কপোতীর চুম্বনের ব্যাঘাত ঘটে। দ্রুতই রুদ্র রিতাকে ছেড়ে দিয়ে মোবাইলটা হাতে নিয়ে কল রিসিভ করে। romantic choti

-(ইয়েস ম্যাডাম, ফাইল ওকে আছে আমি এখনি নিয়ে আসছি) ম্যাডাম ডাকছে এক্ষুনি যেতে হবে। তবে রিতা তুমি কিন্তু আগের মতই মিষ্টি আছো।

-আর মন ভোলানো কথা বলতে হবে না, যদি মিষ্টিই হতাম তবে সেদিনের পরও আমাকে দূরে রাখতে পারতে না। যাও এখন ম্যাডামের কাছে আমিও চলি কাজ জমে আছে।

অফিস থেকে একটু আগেভাগেই বের হয়েছে রুদ্র ছুটকি কে নিয়ে শপিংমলে যেতে হবে তাই। বাসায় গিয়ে ছুটকি কে নিয়ে শপিংমলের দিকে রওনা হয় সে। পার্কিং এ বাইকটা রেখে শপিংমলের দিকে যেতে থাকে, ভিতরে ঢুকতে যাবে তখনি কানে বাজে কেউ ওর নাম ধরে ডাকছে। প্রথমে ভেবেছিল মনের ভুল হবে হয়তো। কিন্তু এবার স্পষ্ট শুনতে পেল “রুদ্র দা রুদ্র দা” বলে কেউ ডাকছে কণ্ঠ টাও কেমন পরিচিত ঠেকলো। পিছন ফিরে তাকাতেই দেখে তনু এদিকে এগিয়ে আসছে।

-বাপরে, এত ডাকছি শুনতেই পাও না তুমি। কানে কম শুনো নাকি। romantic choti

-(ওর দাদা কে অচেনা একজন ওমন করে কথা বলছে শুনে ছুটকির রাগ ওঠে যায়, একটু এগিয়ে এসে) এই কি বলছো এসব, আমার দাদা কে। দাদা কানে কম শুনতে যাবে কেন?

-(মিষ্টি একটা হাসি হেসে) দাদাভাই এটা বুঝি তোমার সেই বোন ছুটকি।

-(মেয়েটার মুখে দাদাভাই ডাক টা শুনে ছুটকির নিজের কাছেই একটু লজ্জা লাগে, কিন্তু মেয়েটা কে চিনতে পারছো না তো) কিরে দাদা কে ও? তোকে দাদাভাই ডাকছে(গলার স্বরটা একটু নামিয়ে জিজ্ঞেস করে)

-(হাসতে হাসতে রুদ্র দুজনের দিকেই তাকিয়ে) ও তনু, তোর মতই আরেক বোন। তোকে তো ওর কথা বলাই হয় নি, পড়ে বলবো নে সব। আচ্ছা তনু তুই এখানে কেন? কার সাথে এসেছিস?

-এক ফ্রেন্ডের বার্থডে তে যাবো তার গিফট কিনতে এসেছিলাম, দিদির সাথে এসেছি।

-তা তোর দিদি কই? পরিচয় করাবি না?

-এখানেই তো ছিল, কি একটা ইম্পর্ট্যান্ট কল এসেছে তাই গাড়িতে গিয়ে বসলো।( পার্কিং এর দিকে ইশারা করে গাড়িটা দেখালো). romantic choti

-(পার্কিং এ অনেক গাড়ি দাড়িয়ে কোনটা ওর দিদির সেটা বুঝা মুশকিল, তবে হঠাৎ চোখে পড়লো ওদের অফিসের একটা গাড়ি পার্কিং এ দাড়িয়ে। কেউ এসেছে হয়তো) তা তুই নিজের জন্য কিছু কিনলি না?

-না তো৷ একটা ড্রেস পছন্দ হয়েছিল কিন্তু দিদি কিছুতেই কিনে দিলো না, বলে কিনা আমার যে জামাগুলো আছে সেগুলো দিয়ে নাকি একটা দোকান দেয়া যাবে।

-(হা হা করে হাসতে হাসতে) সে তো ছুটকিরও আছে তবুও তার নতুন ড্রেস চাই বান্ধবীর বার্থডে পার্টিতে যাবে।( ছুটকি মুখে ভেংচি কেটে হালকা ঘুসি দেয় রুদ্রের হাতে)  তুই চল আমার সাথে আমি কিনে দেব তোকে।

-না দাদাভাই দেরি করলে দিদি আবার বকাবকি শুরু করবে। যা রগচটা স্বভাব ওর।

-আচ্ছা ঠিক আছে ছুটকির জন্য যেই ড্রেসটা কিনবো সেটাও তোর জন্য কিনবো। romantic choti

-থ্যাংক ইউ দাদাভাই, এখন যাই না হলে ম্যাডাম আবার চেচামেচি করবে।(ছুটকির সাথে হাত মিলিয়ে) তোমার সাথে তো কথাই হলো না, আরেকদিন অনেক আড্ডা দেব কেমন।

-অবশ্যই, দাদাকে বলবো তোমাকে একদিন আমাদের বাসায় নিয়ে আসতে।

তনু বিদায় নিয়ে পার্কিং এর দিকে চলে যায়, রুদ্র ছুটকি কে নিয়ে শপিংমলের ভিতরে চলে যায়। তনু গাড়িতে উঠে বসতেই ওর দিদি জিজ্ঞেস করে

-কিরে এত দেরি হলো কেন? আমি সেই কখন থেকে বসে আছি।

-(রাগান্বিত স্বরে) পরিচিত একজনের সাথে দেখা হয়েছিল, তাই দেরি হয়েছে৷ তোর কি তাতে তুই তো এসিতেই বসেছিলি।

-ড্রেস টা কিনে দেই নি বলে রাগ দেখাচ্ছিস।

-তোকে রাগ দেখাতে বয়েই গেছে, তোর কিনে দিতে হবে না। আরেকজন আছে সে ঠিক কিনে দিবে।

-আরেকজন টা কে আবার?? তর বয়ফ্রেন্ড নাকি রে? romantic choti

-এত প্রশ্ন করিস কেন? আমার না তোর বয়ফ্রেন্ড গিফট করবে ঠিকাছে। কখন থেকে বকবক করছে এখন তোর দেরি হচ্ছে না, বাসায় চল।

  মায়ের বস আর আমি মিলে মায়ের সাথে থ্রিসাম সেক্স

Leave a Reply

Your email address will not be published.