sundor choti সুন্দর শহরের ঝাপসা আলো – 65 Jupiter10

Bangla Choti Golpo

bangla sundor choti. বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রৌদ্রের প্রকোপটাও বাড়ে এখানে। চৈত্র পেরিয়ে বৈশাখ মাস ঢুকছে। আর এখন থেকেই গ্রীষ্মের উত্তাপটা জানান দিচ্ছে। পাথুরে মাটির দেশ এটা। খাদানের জন্য বিখ্যাত।  তাই যত দিন বাড়ে, উত্তাপের মাত্রা টাও বাড়তে থাকে। আবার সাঁঝ নামার সঙ্গে শীতল বাতাসের আগমন হয় পশ্চিম থেকে। বলে নাকি নেপালের হিমেল বাতাস পশ্চিমের বিহার রাজ্য হয়ে এই জেলায় প্রবেশ করে। কিন্তু দিনের বেলা পাথরের উত্তাপ বিকিরণে সেই বিশ্বাস ভঙ্গ হতেও পারে।

বেলা সাড়ে নয়টা বাজার সঙ্গে সঙ্গে বিকেল চারটে অবধি সারা গ্রাম খাঁ খাঁ করে। এই সময় যে যার সে তার কাজে মগ্ন থাকে। গ্রামের পুরুষরা যায় মাঠে এবং ভিন গ্রামে নিজের কাজে। মহিলারা যারা ঘরের কাজ করে তারা ঘরেই থাকে আর যারা বাইরে কাজ করে তারা সকালেই রোদ চড়া হবার আগেই বেরিয়ে পড়ে। কচিকাঁচারা যায় স্কুলে আর রাখালরা যায় গরুর পাল নিয়ে। এই সময় গ্রাম যেন জন শূন্য হয়ে পড়ে। মানুষের কার্যকলাপের থেকে পশু,পাখীর ডাক শুনতে পাওয়া যায় বেশি।

sundor choti

বেলা এখন সাড়ে দশটা। সঞ্জয় মোবাইল থেকে অফিসের হোয়াটস আপ গ্রুপ এবং মেইল থেকে নতুন মেসেজ গুলো পড়তে থাকে।
আজ তারা সবাই ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে উঠে পড়েছিল। বীরভূম কলকাতা থেকে অনেকটাই পশ্চিমে। তাই সূর্যোদয় মিনিট পনেরো পরে হলেও, এখানে প্রচুর ফাঁকা জমি থাকায় অনেক মুক্ত আকাশ। তাই সঞ্জয়ের মনে হয় সূর্য যেন একটু আগেই উঠেছে এখানে।
সুমিত্রা ও চন্দনা ঘুম থেকে উঠে প্রাতঃকৃত্যাদি করেই চলে গেছিল জটাবাবার থানে।

সঞ্জয় যায় নি। সে মার ঘরে ঢুকে প্রথমেই সেই পুরোন মার বইএর ট্রাঙ্কটা চৌকির তলা থেকে টেনে বের করেছিল সে।  তালা লাগানো ছিল না। ট্রাঙ্কটা খুলে দেখে মা ঠিকই বলেছিল। মাধ্যমিকের সার্টিফিকেট ও মার্কশীট যত্ন করে রাখা ছিল একেবারে মার পুরোন বইগুলোর উপর।
সার্টিফিকেটে জ্বলজ্বল করছে মার নাম –  সুমিত্রা মন্ডল। বাবার নাম – খগেন মন্ডল, জন্ম তারিখ – ১৫ই মার্চ, ১৯৭৬,  ১৯৯২ খ্রিস্টাব্দের মার্চ মাসের মাধ্যমিকে পরীক্ষার্থিনী প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণা হন। sundor choti

মা ফার্স্ট  ডিভিশনে পাশ করেছিল!
আনন্দে উত্তেজনায় সে উল্টেপাল্টে মার মার্কশীটটাও দেখে। ৯০০র মধ্যে ৫৯৭ নম্বর পেয়েছিল মা। ফার্স্ট  ডিভিশন পেয়েছিল মা! এই তো মার্কশীটের তলাতেই লেখা রয়েছে ফার্স্ট ডিভিশন শুরু হয় ৫৪০ নম্বরে। ইতিহাসে নম্বর সবচেয়ে বেশি ৮৪। মা লেটার পেয়েছিল ইতিহাসে? উরিব্বাস! দেখেছ! কোনওদিন মুখ ফুটে বলেনি! লেটার ওয়ার্ক এজুকেশনেও, ৮৩।  বোঝাই যায় মা ব্যায়াম করোতে খেলাধুলোয় পটু ছিল। ইংরেজিতে নম্বর সবচেয়ে কম। মাত্র ৪৯।

বিজ্ঞান বিভাগে সব বিষয়েই ৬০ এর কাছাকাছি বা উপর। ভূগোলেও ষাট এর উপর! যদি শহরের মেয়ে হত তাহলে যে কী নম্বর পেত কেউ জানেনা। হয়ত মাধ্যমিকে প্রথম দশজনের মধ্যে থাকত!
সে উত্তেজনায় ঘর থেকে মার মার্কশীট ও মাধ্যমিক সার্টিফিকেট নিয়ে ঘরের বাইরে বেরিয়ে আসে।  তারপর আবার কি ভেবে ঘরে আবার ঢোকে। নিজের সুটকেসটা খুলে, উপরের ডালার নেটের পকেটে নথি দুটো ভরে চেন আটকে দেয় সে। তার বুকে উচ্ছ্বাসের তরঙ্গ উঠেছে। sundor choti

মার এই মাধ্যমিক সার্টিফিকেটই তাদের বিয়ের চাবিকাঠি। সে চোখের সামনে দেখতে পাচ্ছে বীরভূমের পাত্রী সুমিত্রা মন্ডল, বয়স ৪০ বছর, পিতার নাম  স্বর্গীয় খগেন মন্ডল, এর সঙ্গে কলকাতা নিবাসী পাত্র সঞ্জয় মন্ডল, বয়স ২২ বছর ৭ মাস,  পিতার নাম পরেশনাথ মন্ডল, এর শুভ বিবাহ।
সে ঘর থেকে বেরিয়ে আসে আবার। সকালের অল্পস্বল্পখাবার খেয়ে ঘরের দাওয়া তার ছোটমামা দীনবন্ধু তখন হুঁকো টানছে গুড়ুক গুড়ুক শব্দ করে।  খালি গা, পরনে একটা লুঙ্গি  হাঁটুর উপরে তুলে পরা।

“ছোটমামা আমি তোমার সাইকেলটা নিয়ে গ্রামটা ঘুরে আসব? কতদিন দেখিনি!” সঞ্জয় সকালবেলায় সদ্য নিকোনো উঠোনে পা রেখে বলে।
“তা যাও বাপধন, ঘুরে ঘুরে দেখে এস আমাদের গাঁ,” তামাক টানতে টানতে বলে দীনবন্ধু।
সোঁ সোঁ করে সাইকেল চালিয়ে বেরিয়ে পড়ে সঞ্জয়। তার বুক আগামী বিবাহিত জীবনের স্বপ্নে ভরে উঠেছে। থই থই করে খুশির উচ্ছ্বাস। sundor choti

প্রায় দুঘন্টা পরে যখন সে মামাবাড়ি ফিরে এল, তখন চন্দনা ও সুমিত্রা জটাবাবার থান থেকে পুজো দিয়ে ফিরে এসেছে।
সঞ্জয় মার কাছ থেকে প্রসাদ নিয়ে খায়। খেতে খেতে প্রশ্ন করে, “ছোটমামী জটাবাবার কাছে কি চাইলে?”
চন্দনা উত্তর দেয়, “চাইলাম আমাদের মলয়টাকে যেন ভাল রাখে। মলয় যেন আমাদের আবার ভালবাসে। তার বউ যেন আমাদের ভালবাসে। এই আর কি?”
“আর তুমি মা? তুমি কি চাইলে?” সঞ্জয় মার কাছে জানতে চায়।

চন্দনাও সুমিত্রার কথা শোনার জন্যে উৎসুক হয়ে তার মুখের দিকে চায়।
সুমিত্রা ছেলের চোখে চোখ রেখে বলে, “আমি আমার বাবুর জন্য একটা ভাল বউ চাইলাম।  বাবু যেন তাকে সারাক্ষণ ভালবাসে, সে তো বাবুকে খুব ভালবাসবে তাই,” বলতে বলতে লজ্জায় লাল হয়ে ওঠে সুমিত্রা।
সঞ্জয় চাপ দেয়, “আর কিছু চাইলেনা, তুমি?” sundor choti

“হ্যাঁ চাইলাম, তাদের বিয়ে যেন খুব ভালোয় ভালোয় কাটে, তারা যেন খুব সুখী হয়,” অস্ফুটে বলে সুমিত্রা। তারপর যোগ করে, “সুন্দর সুন্দর ছেলেমেয়েতে যেন তাদের ঘর ভরে যায়!”
সঞ্জয় সবার সামনে মার মুখে এ কথা শুনে স্তব্ধ হয়ে চেয়ে থাকে। তার খুব ইচ্ছে করে যেন মাকে সাপটে ধরে চুমোয় চুমোয় ভরিয়ে দেয়। মার জিভ মুখের মধ্যে নিয়ে চুষে খায়। তার হাত দুটো নিশপিশ পায়ের কাছ থেকে মার শাড়ি তুলে নিয়ে মার নগ্ন নরম পাছা দুহাত দিয়ে দলন করতে।  কিন্তু এসব কিছুই করে না সে। কেবল মার চোখে চোখ রেখে চেয়ে থাকে সে। তার মুখে রক্তকণিকারা ছুটোছুটি করে।

এরপর তারা সকলে সকালের প্রাতঃরাশ সারে ফেনাভাত ও আলুসেদ্ধ দিয়ে।
তারপর থেকে এখনও পর্যন্ত চন্দনা রান্নায় ব্যস্ত এবং সুমিত্রা তাকে সাহায্য করছে।
এইমাত্র কিছুক্ষণ আগে সে সঞ্জয়ের কাছে এসে বলে, “তুই তৈরি হয়ে নে বাবু। আমরা পুকুরে চান করতে যাবো” । sundor choti

সঞ্জয় জিজ্ঞেস করে, “আমরা মানে আমরা তিনজন?”
সুমিত্রা হাসে, “না। আমরা দুই জন। আমি আর তুই। তোর মামীর রান্না শেষ হয়নি এখনও” ।
মার কথা শুনে সঞ্জয় উত্তেজিত হয়, “আমি এখুনি তৈরি হয়ে নিচ্ছি মা,” এই সময়টার জন্যে অনেকক্ষণ ধরে অপেক্ষা করছিল সে।
সুমিত্রা সেখান থেকে বেরিয়ে এসে আবার রান্নাঘরে প্রবেশ করে। সঞ্জয় একখানা টি-শার্ট এবং  ফিতে দেওয়া বারমুডা প্যান্ট পরে বেরিয়ে আসে।

চন্দনা ভাতের মাড় গড়াতে গড়াতে বলে, “তোমরা মা ছেলে মিলে যাও।আমি রান্না সেরে যাচ্ছি”।
এমন মুহূর্তে দীনবন্ধু ঘর থেকে বেরিয়ে আসে। পরনে পা অবধি নামানো লুঙ্গি, সাদা জামা এবং ডান কাঁধে ঝোলানো লাল গামছা।
সে চন্দনাকে জিজ্ঞেস করে, “ওরা এখন কোথায় চলল?” sundor choti

চন্দনা রান্নাঘর থেকে উঁকি দিয়ে মুখ বের করে বলে, “ওরা মা ছেলে মিলে পূর্বের পুকুর টায় চান করতে চলল…,” একটু থেকে সেও দীনবন্ধুকে প্রশ্ন করে, “তুমি আবার কোথায় চললে?”
দীনবন্ধু বলে, “আমি বীজ ঘর চললাম গো। দেখি পটল এবং ঝিঙ্গের বীজ এনেছে কিনা। বীজ পেলে এই ক’দিনের মধ্যেই লাগিয়ে দিতে হবে। মাটি তৈরি করা আছে”।

এখানে কাছাকাছি দুটো পুকুর। একটা সুমিত্রার বাড়ির ঠিক পেছনে। আর অপরটা কিছুদূরে পূর্বে।
বাড়ির পেছনের পুকুরটায় মাছ চাষ করেছে বলে সেখানে স্নান করা বারণ। কিন্তু পূর্ব দিকের পুকুরটা স্নান করার জন্য। ওই পুকুরের জলও খুব পরিষ্কার। পাথুরে মাটি বলে জলের স্বচ্ছতাও কাঁচের মতো। sundor choti

বাড়ির পূর্ব দিকের পুকুর পাড়ে হেঁটে আসে তারা। সঞ্জয় পুকুরের পরিষ্কার জল দেখে অভিভূত হয়। এখানে এখন কেউ আসবে না। সুতরাং মা’র সঙ্গে মন ভরে জল কেলি করবে সে। মনে মনে ভাবে। বহু আগে মা’র সঙ্গে দিঘায় বেড়াতে গিয়েছিলো। সেখানে মা সাঁতার কেটে ছিল। কিন্তু সঞ্জয় সাঁতার জানে না। তাই এখানে সে তার মাকে বলবে সাঁতার শিখিয়ে দিতে।
সে বলে, “মা…। এই পুকুরের জলটা খুবই পরিষ্কার বলো?”

সুমিত্রা বলে, “হ্যাঁ রে। পাঁক নেই এই পুকুর টায়। জলে নামলে বুঝতে পারবি নরম বালি পায়ে ঠেকছে। আর গ্রামের এক পাশে হওয়ার কারণে খুব বেশি লোক জন আসে না এখানে স্নান করতে” ।
সঞ্জয় খুশি হয়, “তাহলে তো কোন কথায় নেই। কেউ আমাদের ডিস্টার্ব করতে আসবে না। আমরা একঘণ্টা ধরে স্নান করবো” ।
ছেলের কথা শুনে সুমিত্রা হাসে, “তাই? জল কিন্তু খুব ঠাণ্ডা হবে বাবু” । sundor choti

সঞ্জয় বলে, “কিছু হবে না মা। তুমি তো জানো আমার ঠাণ্ডা লাগার ধাত নেই। আর তাছাড়া তুমি আমাকে আজ সাঁতার কাটা শিখিয়ে দেবে” ।
সুমিত্রা অবাক হয়ে সঞ্জয়ের দিকে তাকায়। সঞ্জয় বলে, “এভাবে তাকানোর কি আছে? মনে পড়ে আমরা দিঘায় বেড়াতে গিয়েছিলাম আর তোমায় বলেছিলাম মামারবাড়ি গেলে তুমি আমাকে সাঁতার শিখিয়ে দেবে” ।
সুমিত্রা হেসে বলে, “সাঁতার কি একদিনে শেখা যায় বাবু” ।

সঞ্জয় বলে, “একটু বেশি সময় নিলে শেখা যায় বইকি। চেষ্টা করতে আর কি ক্ষতি?”
সুমিত্রা হাঁফ ছাড়ে, “চল দেখি” ।
পুব দিকে তাদের বাড়ির থেকে প্রায় একশ পা দূরে নির্জন পুকুরের ধারে তারা এসে পৌঁছয়। পুকুরটা খুব না হলেও বড়ই। প্রায় দেড়শ ফুট লম্বা একশ ফুট চওড়া হবে। sundor choti

পুকুরের পাড় সিমেন্ট দিয়ে বাঁধানো। তাতে সিঁড়ি দিয়ে ধাপ করা। পুকুরের  পিছনদিকে বিস্তৃত অগাধ ধান ক্ষেত। সেখানে এখন ধান কেটে নেওয়া হয়েছে। শুধু শুকনো খড়ের অবশিষ্ট টুকু পড়ে আছে। পুকুরের সিমেন্ট বাঁধান ঘাটের আশেপাশে সার দিয়ে লাগান বড় বড় নারকেল গাছ। বেশিরভাগের গাছেই প্রচুর ডাব ঝুলছে।
সুমিত্রা শাড়ি পরেই নেমে জলে নেমে পড়ে। প্রায় তখুনি গলা জলে চলে যায় সে।

সঞ্জয় টি-শার্ট খুলে খালি গায়ে নিম্নাঙ্গে কেবল বারমুডা পরে ঘাটের সিঁড়ি দিয়ে জলে নামে। দুই সিঁড়ি নেমে কেবল পায়ের পাতা ভেজান গভীর জলে  দাঁড়িয়ে সামনের দিকে তাকিয়ে থেকে মাকে দেখে। “এভাবে তুমি সাঁতার কাটতে পারবে মা?” সঞ্জয় অবাক হয়ে প্রশ্ন করে।
সুমিত্রা বলে, “কেন পারবো না? তুই শুধু দ্যাখ” ।
সঞ্জয় হেসে মজা করে, “আগে থেকে বললে, তোমার জন্য বিকিনি অর্ডার করে দিতাম অনলাইন থেকে” । sundor choti

সুমিত্রা ছেলের কথায় পাত্তা দেয় না। সে গলা জলে গিয়ে গা ভিজিয়ে নেয়। তারপর খোঁপা আলগা করে চুলের গোছা কে স্বাধীন করে। মাথা ডুবোয় জলের তলায়। তিরিশ সেকেন্ড পর উঠে মুখ তুলে উঠে আসে। দু’হাত চুল থেকে জল নিংড়ে পুনরায় খোঁপা বেঁধে নেয় সে। তারপর অবলীলায় ভেসে ভেসে পা দাপিয়ে সাঁতার কাটে।

প্রকৃতির মাঝে সঞ্জয় মাকে দুচোখ ভরে দেখে । সম্পূর্ণ সিক্ত শরীরে সুমিত্রাকে তার মনে হয় যেন জলপরী। মাথাভরা ভেজা চুল। ভেজা সুতির আটপৌরে শাড়ি এবং সেই ভেজা শাড়ির মধ্য দিয়ে তার ভরাট বুক উপচে পড়ে। সাঁতারের সময় জলের আঘাতে তার শাড়ির আঁচল বারবার খসে পড়ে বুক থেকে। ফলে ব্লাউজের উপর থেকে তার ভারি উথলে ওঠা দুই স্তনের মাঝের গভীর খাঁজ সঞ্জয়ের  বুকে তোলে দোলা। sundor choti

ছেলেকে  জলে নামতে ইতস্ততঃ করতে দেখে সুমিত্রা ঘাটের দিকে সাঁতরে ফিরে আসে। সিঁড়ি দিয়ে উপরে উঠতে থাকে সে।  কোমর সমান জলে দাঁড়িয়ে সুমিত্রা ডাক দেয় ছেলেকে,  “এই দিকে কি দেখছিস বাবু? নেমে আয়!”,
ভেজা শাড়ির মধ্যে তার হালকা মেদে ভরা পেট সুস্পষ্ট ভাবে ফুটে উঠেছে এবং সুগভীর চাপা নাভি ছিদ্র যেন কুয়াশার আড়ালে গিরিবর্ত্মের মত আচ্ছন্ন। অস্পষ্ট কিন্তু মোহময়।

সঞ্জয় সম্মোহিতের মত এগিয়ে যায়। ডান হাত বাড়িয়ে মার ডান হাত ধরে।  মার পাশে গিয়ে দাঁড়ায় সে। জল তার কোমর সমান নয় এখানে।
“এবারে এক ধাপ নিচে নাম,” সুমিত্রা উৎসাহ দেয়।  মার পাশ থেকে সিঁড়ির একধাপ নিচে নামে সে। এবারে জল তার কোমর সমান। সুমিত্রা আরও একধাপ নেমে ছেলের পাশে দাঁড়ায় এবার। পুকুরের জল তার স্তনপিন্ডদুটিকে স্পর্শ করে। ঠান্ডা জলে তার স্তনবৃন্তদুটি শক্ত। ভেজা শাড়ির উপর দিয়ে স্পষ্ট হয়ে ফুটে রয়েছে। sundor choti

তারা ঘুরে পরস্পরের মুখোমুখি দাঁড়ায়। জলসুন্দরী মাকে দেখে তার আশ মেটে না। সাঁতার অনুশীলন ভুলে যায় সে। জলের তলা দিয়ে বাম হাত দিয়ে  সে মার কোমর জড়িয়ে ধরে।
সুমিত্রা বলে, “কি হলো বাবু সাঁতার শিখবি বললি যে?”
সঞ্জয় অস্ফুটে বলে, “এভাবে সাঁতার শেখা যায় না মা?”

সে তার ডান হাত মা’র কোমর থেকে পেটের দিকে নিয়ে যায়। নাভির চারপাশে হাত ঘোরায়। মধ্যমা আঙুল প্রবেশ করায় মার নাভিছিদ্রে ।
সুমিত্রা শশব্যস্তে বলে, “অ্যাই, দুষ্টুমি করিস না। লোকে দেখলে মস্ত কেলেঙ্কারি হবে। দেখেছিস তো মার চল্লিশ গজ দূরে আমাদের পড়শীদের বাড়ি। তাদের জানালা দিয়ে সব দেখা যায়”।
“তা ঠিক বলেছ মিত্রা, তবে কাল রাতের পর থেকে আর নিজেকে সামলাতে পারছি না। খুব ইচ্ছে করছে তোমাকে আদর করি,” সঞ্জয় সংযত হয়ে দায়িত্ববান প্রেমিক হওয়ার চেষ্টা করে। সে মার দেহ থেকে হাত সরিয়ে নেয়। sundor choti

সুমিত্রা হাসে।  ঘাটের নারকেল গাছের পাতাগুলোর ফাঁক দিয়ে রোদের কিরণ নরম হয়ে তার মুখের উপর পড়েছে। সেই নরম আলোতে সঞ্জয় দেখে মার পুরু ঠোঁটদুটিতে রক্তাভা। তিরতির করে কাঁপে ঠোঁটদুটো।
“আমারও ভীষণ ইচ্ছে করছে, তুমি জানো সোনা,” নিবিড় গলায় বলে সুমিত্রা। তার নাকের পাটাদুটো ফুলে ওঠে। বাম নাকে হীরের নাকছাবি দ্যুতি ছড়ায়।
“চল আয় আরও গভীর জলে যাই,” ডান দিকে ঘুরে ছেলের বুকে বাম হাত দিয়ে আস্তে ঠেলা মারে সে। সঞ্জয় সিঁড়ির দুধাপ নিচে নামতেই জল তার চিবুক ছোঁয়।

সুমিত্রা ছেলের একধাপ উপরে দাঁড়িয়ে থাকে, এখানে গলা জল তার।
“দেখ এবারে!” সুমিত্রা ছেলের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে জলে ডুব দেয়।  জলের উপর থেকে আর দেখা যায় না তার শরীর।
সঞ্জয় বুঝতে পারে ডুব দিয়ে মা দ্রুত হাতে তার পরনের বারমুডার দড়ি খুলে দেয়। তারপর দুই হাতে প্যান্টের ইলাস্টিক ধরে টেনে নিচে জাঙ্গিয়া শুদ্ধ তার ঊরু নামিয়ে দেয় বারমুডাটা। sundor choti

অনুভব করে মার নরম হাৎ মুঠো করে ধরে তার উদ্ধত পুরুষাঙ্গ। মুঠো পিছনে ঠেলে দিতে লিঙ্গচর্ম খুলে গিয়ে অনাবৃত হয় তার লিঙ্গমুণ্ড। তারপরেই মার নরম ঊষ্ণ ঠোঁটদুটো নিবিড় করে ঘিরে ধরে তার কামদন্ড। সুমিত্রা চোষে। মুখের গভীরে নিয়ে যায়। আবার চোষে। সঞ্জয় সুখে পাগলের মতো হয়ে যায়। তারপর হঠাৎ অনুভব করে সে সুখ আর নেই। মা তাকে ছেড়ে দিয়ে ডুব সাঁতার দিয়ে একটু দূরে ভুস করে ভেসে ওঠে। সাঁতার কাটতে কাটতে তার দিকে চেয়ে হাসে। চিৎকার করে বলে, “কেমন?”

সাঁতার কেটে আবার ছেলের সামনে এসে সিঁড়ির ঠিক আগের ধাপটিতে এসে দাড়ায় সুমিত্রা।  মা তার মুখোমুখি দাঁড়াতেই সঞ্জয়ও সাহস পেয়ে ডুব দেয়।  পায়ের পাতার ধার থেকে শাড়ির তলা ধরে উপরে তুলে জলের নিচে মার কোমর অবধি অনাবৃত করে দেয় সে।  মার নগ্ন নিতম্ব ও রোমশ ঊরুসন্ধিতে হাত দিয়ে বিস্মিত হয়। জল থেকে মাথা তুলে এক বুক নিঃশ্বাস নেয়।

এক মুখ হেসে বলে, “মা! তুমি ভেতরে প্যান্টি পরোনি? দারুণ!” আবার ডুব দেয় সে। মুখ নিয়ে যায় মার ঊরুসন্ধিতে।  দুই হাতে মার কেশাবৃত যোনির ঠোঁট ফাঁক করে দিয়ে জিভ দিয়ে চাটে নরম মাংসে। সুমিত্রা আবেশে ঊরুদুটি আরও ছড়িয়ে দেয়।
সঞ্জয় জল থেকে মাথা তুলে সিঁড়িতে দাঁড়াতেই চাপা স্বরে বলে, “ঘুরে দাঁড়া সোনা!”
মার কথা শুনে সঞ্জয় ধান ঘুরে জমির দিকে মুখ করে দাঁড়ায়। sundor choti

“আমি ডুব সাঁতার দিয়ে আসছি। আমার পিছন দিয়ে ঢুকিয়ে দিবি এবার!” বলেই সুমিত্রা সাঁতরে গভীরে জলে চলে যায়।  তারপর জলে ডুব দেয়। আর দেখা যায় না তাকে।

হঠাৎই সঞ্জয় অনুভব করে মা ডুব সাঁতারে উপুড় হয়ে তার নগ্ন নরম ঊরুদুটি দিয়ে জড়িয়ে ধরেছে তার কোমর। সিঁড়িতে গলাজলে দাঁড়িয়ে থেকে সে দুই হাত দিয়ে শক্ত করে ধরে মার নরম চর্বি ঢাকা কোমর। মার নিতম্ব ঠেসে ধরে সে নিজের ঊরুমূলে। সুমিত্রা পিছনে বাম হাত নিয়ে ছেলের ঊচ্ছৃত কঠিন পুরুষাঙ্গ ধরে প্রবেশ করিয়ে নেয় নিজের যোনিবিবরে।  তারা খোলা জায়গায় প্রকৃতির মাঝে রতিক্রিয়ারত। অথচ কেউ টের পাবে না।  সুমিত্রা অনুভব করে ছেলের লিঙ্গ সম্পূর্ণ প্রবিষ্ট তার যোনি গহ্বরে। sundor choti

তার মনে হয় সারাজীবন যেন তার প্রাণের বাবুসোনা তার ভিতরেই থাকে এমন ভাবে। সঞ্জয় আদিম উত্তেজনায় সুমিত্রার নরম কোমর ধরে কয়েক সেকেন্ডের ভিতরেই বারবার নিজেকে প্রবেশ করিয়ে নেয় মার শরীরের মধ্যে। চঞ্চল ডান হাত দিয়ে আদর করে মার চুলে ঢাকা যোনি বেদীতে।  এমনই সময় সুমিত্রা তাদের গভীর জলের তলার রমণ স্থগিত করে সাঁতার দিয়ে ছিটকে বেরিয়ে যায়।  সামনে দশ ফুট দূরে ভুস করে ভেসে উঠে মাথা তোলে সে। গভীর শ্বাস নিয়ে আবার ডুব দেয় সে।

আবার একই ভাবে জলের তলায় যুক্ত হয় মা ও ছেলে।  সেকেন্ড কুড়ি পর আবার রমণ অসমাপ্ত রেখে ডুব সাঁতার দিয়ে ফুট দশেক দূরে ভেসে ওঠে সুমিত্রা।  তারপর অলস ভাবে জলের উপর দিতে সাঁতার দিয়ে ছেলের কাছে আসে সে।
খুব হাসে সুমিত্রা, “কেমন রে?”
বিস্ময়ে হতবাক সঞ্জয় দেখে উত্তেজনায়, পরিশ্রমে মা মুখ লাল টকটক করছে। নিঃশ্বাস পড়ছে ঘনঘন। sundor choti

সুমিত্রা চাপা স্বরে বলে, “ওই দেখ তোর ছোটমামী আসছে,” চোখ দিয়ে ইঙ্গিত করে সে।
সঞ্জয় ঘুরে  ঘাটের দিকে তাকায়। বকুল আর আম গাছের ছায়ায় ঘেরা সরু পথ ধরে দূর থেকে দেখা যায় চন্দনার অবয়ব।
মা ও ছেলে জলের তলার সিঁড়ি দিয়ে ধাপে ধাপে উঠে  ঘাটের দিকে এগিয়ে যায়। চন্দনা পুকুর ঘাটে এসে দাঁড়ায়। তাদের দিকে তাকিয়ে হেসে বলে, “মা ছেলে মিলে স্নান করা হচ্ছে বুঝি” ।

সুমিত্রা চাপা হাসি দিয়ে বলে, “হ্যাঁ দ্যাখো না। তোমার ভাগ্নেকে সাঁতার শেখাচ্ছি” ।
চন্দনা ঘাটের সামনে এসে দাঁড়ায়, “এতক্ষণ তো তোমার কাছে শিখল ছোট ঠাকুরঝি, এবার দেখ আমি বাপধনকে সাঁতার শিখিয়ে দিচ্ছি” ।
“এই নে। তোর মামী তোকে সাঁতার শিখিয়ে দেবে বলছে। শেখ মামীর কাছে। আমি তাড়াতাড়ি চান সেরে ঘরে গিয়ে তৈরি হই,” সুমিত্রা হেসে সঞ্জয়ের দিকে তাকিয়ে বলে। sundor choti

চন্দনা জলে নেমে তাদের কাছে আসে। সে সুমিত্রাকে হাত বাড়িয়ে দেখায়, “এই দ্যাখো তোমার জন্য লাক্স সাবান আর পণ্ডসের ফেস ওয়াস আনলাম সুমি। আর শ্যাম্পুর পাতাও এনেছি দেখে নিও” ।
সুমিত্রা ভেজা শরীর নিয়ে ঘাটের দিকে এগিয়ে আসে। সিঁড়ির ধাপে বসে ফেস ওয়াশ গালে নেয়। চন্দনা সঞ্জয়ের দিকে এগিয়ে যায়। তারা একে অপরের দিকে হাসি মুখে তাকায়।

চন্দনা হাত বাড়ায়, “তুমি আমার সঙ্গে এসো বাবা। জলের আরও একটু গভীরে যেতে হবে তবেই সাঁতার শিখতে পারবে” ।
সঞ্জয়, মামীর কথা মতো তার হাত ধরে গভীর জলের দিকে এগিয়ে যায়। এক গলা জলে দাঁড়িয়ে থাকে সে। চন্দনা বলে, “নাও এইবার আমি যেভাবে সাঁতার কাটছি। তুমি সেভাবে করার চেষ্টা কর” ।

  hot sex golpo এ কেমন খেলা (তৃতীয় পর্ব) by anu

Leave a Reply

Your email address will not be published.